চেহ্লুম বা চল্লিশা পালন

1175
মৃত মুমিন মুসলমানের জন্যে যে কোন দিন কোন ভাল ও নেক কাজ করে সাওয়াব ‎পাঠানো অত্যন্ত কল্যানকর ও আমাদের জন্যে সাওয়াবের কাজ। বিশেষ করে তার মৃত্যুর ‎পর তৃতীয় দিনে, চল্লিশতম দিনে সাওয়াব রেসানীমূলক যে কোন আয়োজন হাদিস ‎অনুযায়ী উত্তম ও সাওয়াবের কাজ। এর মধ্যে কোরআন তিলাওয়াত, ফকির-মিসকিন ‎খাওয়ানো, দোয়ার মজলিস করে মুমিনদের দিয়ে দোয়া করানো এবং মুমিনদের আপ্যায়ন ‎করানো অন্যতম। জীবিত মানুষদের পক্ষ থেকে মৃত ব্যক্তির কাছে সাওয়াব পৌছলে তার ‎আযাব লাঘব হয় এবং সে খুশী হয়। তবে চল্লিশতম দিনে এই সাওয়াব রেসানীর ‎আয়োজন করতে না পারলে সে বিশেষ সাওয়াব থেকে বঞ্চিত হলো মাত্র। অন্য যে কোন ‎দিনে এ আয়োজন করলেও কোন ক্ষতি নেই।
তাই, যে কোন মুসলমান মৃত মানুষের চল্লিশা করা ভাল কাজ। তবে শরীয়তের দৃষ্টিতে ‎এটি ফরজ বলে গণ্য নয়।
আল্লাহ তায়ালা ক্বোরআনুল কারিমে উল্লেখ করছেনঃ
‏«یُنَبَّؤُا الْإِنْسانُ یَوْمَئِذٍ بِما قَدَّمَ وَ أَخَّرَ»؛
সরা আল্ ক্বিয়ামাহ্, সূরা নং ৭৫, আয়াত নং ১৩।
 
অর্থঃ “সেদিন মানুষকে অবহিত করা হবে যে, সে কি অগ্রে পাঠিয়েছে এবং কি পশ্চাতে ‎পাঠিয়েছে।”‎
এ আয়াতে “আখ্-খারা” শব্দ থেকে একজন মানুষের মৃত্যুর পর তার জীবিত ওয়ারিস, ‎আত্মীয়-স্বজন ও ভক্তবৃন্দের পক্ষ থেকে যে সকল ভাল কাজের সাওয়াব পাঠানো হয়, ‎আল্লাহ তায়ালা তা বুঝিয়েছেন বলে বিভিন্ন তফসীরকারক ব্যক্ত করেছেন। অথবা সেই ‎মৃত ব্যক্তি ভাল ও মন্দ এমন কিছু কাজ ও প্রতিষ্ঠান ছেড়ে গেছে যার কারণে তার কাছে ‎ভাল অথবা মন্দ আমলের সাওয়াব অথবা গুনাহ তার মৃত্যুর পর পৌছে থাকে।
আল্লাহ তায়ালা ক্বোরআনুল কারিমের অনত্র উল্লেখ করছেনঃ
‏«رَبَّنَا اغْفِرْ لی‏ وَ لِوالِدَیَّ وَ لِلْمُؤْمِنینَ یَوْمَ یَقُومُ الْحِساب»‏
সূরা ইব্রাহিম, সূরা নং ১৪, আয়াত নং ৪১।
অর্থঃ “হে আমাদের প্রতিপালক! আমাকে, আমার পিতা-মাতাকে ও সকল মুমিনকে ‎হিসাব-নিকাশের দিনে ক্ষমা করো।”‎
একজন মানুষ এ দুনিয়াতে যে সকল ভাল অথবা মন্দ কাজ ও রেওয়াজ স্মৃতি হিসেবে ‎ছেড়ে যায় এবং অন্য মানুষেরা তার রেখে যাওয়া কর্ম, চিন্তা ও প্রতিষ্ঠান ইত্যাদির উপর ‎আমল করার কারনে মানুষেরা যে সাওয়াব অথবা গুনাহ হস্তগত করে তার সাওয়াব ‎অথবা গুনাহ সেই প্রতিষ্ঠাতা ও স্থপতির জন্যেও বরাদ্ধ হয়ে থাকে।
আল্লাহ তায়ালা ক্বোরআনুল কারিমে আরো বলেনঃ
‏«وَ الَّذینَ جاؤُ مِنْ بَعْدِهِمْ یَقُولُونَ رَبَّنَا اغْفِرْ لَنا وَ لِإِخْوانِنَا الَّذینَ سَبَقُونا بِالْإیمانِ»‏
 
সূরা আল হাশ্-র, সূরা নং ৫৯. আয়াত নং ১০।
অর্থঃ “যারা তাদের পরে এসেছে তারা বলেঃ হে আমাদের প্রতিপালক! আমাদেরকে এবং ‎ঈমানে অগ্রগামী আমাদের ভাইদেরকে ক্ষমা করো।” ‎
আগামী প্রজন্ম, গত হয়ে যাওয়া মানুষদের জন্যে আল্লাহর দরবারে ক্ষমা প্রার্থনা করবে ‎এবং তিনি মুমিনদের দোয়া ও ক্ষমা প্রার্থনা কবুল করবেন।
 
হযরত রাসূল(সা.) বলেছেন,
“এ দুনিয়া থেকে মুমিনদের প্রস্থান ঐ শিশুর ন্যায়, যে ‎মায়ের পেট থেকে ভুমিষ্ট হয়। সে অন্ধকার, সংকীর্ণ ও চাপের অবস্থা থেকে মুক্তি পেয়ে ‎আলো ও বিস্তীর্ণ জগতে প্রবেশ করে।”‎
নাহজুল ফাসাহা, আবুল ক্বাশেম পইয়ান্দেহ, হাদিস নং ২৬৪৫।
 
ইমাম আলী সালাওয়াতুল্লাহি ওয় সালামুহু আলাইহি বলেছেন,
“হে জনগণ! আমরা ও ‎তোমরা টিকে থাকার জন্যে সৃষ্টি হয়েছি, ধ্বংস হবার জন্যে নয়। তোমরা মৃত্যুর মাধ্যমে ‎দুনিয়া থেকে প্রস্থান করো না, বরং এক বাড়ী থেকে অন্য বাড়ীতে স্থানান্তরিত হও মাত্র। ‎সুতরাং যে গৃহের দিকে ধাবিত হবে এবং চিরস্থায়ী অবস্থান গ্রহণ করবে সেই গৃহের জন্যে ‎পাথেয় যোগাড় করো।”‎
শেইখ মুফিদ রহমাতুল্লাহি আলাইহি, আল ইরশাদ (ফারসী অনুবাদ), অনুবাদকঃ মুহাম্মাদ ‎বাক্বির সাইদী খোরাসানী, পৃঃ নং ২২৯।
ইমাম হুসাইন সালাওয়াতুল্লাহি ওয় সালামুহু আলাইহি –এর ‎কাছে প্রশ্ন করা হয়েছিল যে, “মৃত্যু কী?” তিঁনি উত্তরে বলেছিলেন, ‌‎“মৃত একজন ‎মুমিনের জন্যে তার সামনে আগত সর্বোত্তম ‎আনন্দ। মৃত্যু এমন এক সেতু যা তোমাদেরকে এ দুনিয়ার ‎নানাবিধ যন্ত্রনাদায়ক সমস্যা থেকে আরাম-‎আয়েশ ও আল্লাহর ‎অনুগ্রহের দিকে পৌছিয়ে দেয়। যেমনি করে আল্লাহর শত্রুদের ‎জন্যে প্রাসাদ থেকে কারাগারে স্থানান্তর করা হয়।”‎
ফাইজ কশনী, মোল্লা মুহাম্মাদ মুহসিন, মাহাজ্জাতুল বাইদ্বা, খণ্ড ‎৮, পৃঃ নং ২৫৫।
সুতরাং আল্লাহর কালাম ও রাসূল ও তার আহলে বাইতের ‎ইমামদের হাদিস সাক্ষ্য দেয় যে, মৃত্যু ও দেহ পচনের কারণে ‎রুহের কোন ক্ষতি হয় ‎না। বরং রুহ পূর্বের ন্যায় অবশিষ্ট থাকবে ‎এবং তার নিজের জন্যে স্বাধীনতা ও মূল অস্তিত্ব বজায় রাখবে। ‎কেননা, আমাদের অস্তিত্ব ও ব্যক্তিত্ব ‎আমাদের আত্মা ও রুহের ‎কারণে বিরাজমান। আমাদের এই পার্থিব দেহের কারণে নয়। ‎মৃত্যু শেষ, ধ্বংস ও ফানা নয়। বরং এক জগত থেকে ‎অপর ‎জগতে স্থানান্তরের নাম। আর এভাবেই মানুষের জীবন ‎অব্যাহতভাবে চলতে থাকবে। একজন মানুষের মৃত্যুর পর তার আশেপাশের লোকজন ও ‎মুমিনদের উপর কিছু কাজ ফরজ হয়ে যায়। যেমনঃ মৃতের লাশ ‎গোসল দেয়া, কাফন ‎পড়ানো, জানাযার নামাজ ও দাফন করা ‎ইত্যাদি। তাছাড়াও যে সব ফরজ কাজ মৃত ব্যক্তির পক্ষ থেকে ‎ক্বাজা রয়ে গেছে তা আদায় করে দেয়া ‎তাদের উপর ফরজ। ‎কিন্তু কিছু কর্তব্য আছে যা ঐচ্ছিক বা মুস্তাহাব। তন্মোধ্যে সদকা ‎দেয়া, দোয়া করা ও কোরআনখানি করা অন্যতম।
হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া আলিহি ওয়া সাল্লামঃ
‎‎“তোমাদের মৃতদের স্মরণ করো, যারা কবরে শায়িত আছেন। ‎তোমাদের মৃতরা তোমাদের দয়ার প্রতি আশা করে আছে। ‎তোমাদের মৃতরা ‎বন্দি আছেন এবং তারা তোমাদের ভাল ও ‎নেক কাজের মুখোপেক্ষী। তারা কোন কাজ করার শক্তি রাখে ‎না। তোমরা সদকা ও দোয়া তাদের ‎জন্যে হাদিয়া হিসেবে প্রেরণ ‎করো।”‎
ইয়াযদী, শেইখ হাসান ইবনে আলী, আনওয়ারুল হিদায়াহ, পৃঃ নং ‎১১৫।
‎হযরত ইমাম জাফার ইবনে মুহাম্মাদ আস্ সাদিক্ব সালাওয়াতুল্লাহি ওয় সালামুহু আলাইহি ‎বলছেন, “একজন মৃত ব্যক্তির জন্যে আল্লাহর কাছ ‎থেকে রহমত ‎ও ক্ষমা প্রার্থনার কারণে সে খুশী হয়ে থাকে। যেমনি করে ‎একজন জীবত ব্যক্তিকে উপহার দিলে সে খুশী হয়।”‎
ফাইজ কশনী, মোল্লা মুহাম্মাদ মুহসিন, মাহাজ্জাতুল বাইদ্বা, খণ্ড ‎৮, পৃঃ নং ২৯২।
‎হযরত ইমাম আলী ইবনে মুসা আর রিদ্বা সালাওয়াতুল্লাহি ওয় সালামুহু ‎আলাইহি বলছেন, “যে ব্যক্তি কোন মুমিনের কবর যিয়ারত করে ‌‎এবং তার কবরের পাশে সাতবার সূরা আল ক্বাদ্-র তিলাওয়াত ‎করে, আল্লাহ তায়ালা ঐ যিয়ারতকারী ও কবরবাসী ব্যক্তি ‎উভয়কে ক্ষমা করে ‎দিবেন।”‎
আল্লামা বাক্বির মাজলিসী, বিহারুল আন্-ওয়ার, খণ্ড ৭৯, পৃঃ নং ‎১৬৯।
‎↯↻↯↻↯‎

Related Post

Leave a comment

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Translate »